কেশবপুরে কথিত ডাক্তার মিঠুর ১৫ দিন কারাদণ্ড

আক্তার হোসেন, ডেস্ক রিপোর্ট    ।। কেশবপুরে বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমডিসি) এর রেজিস্ট্রেশন ছাড়াই নারী, পুরুষ ও শিশু রোগের চিকিৎসা প্রদান করার অপরাধে এক কথিত ডাক্তারকে ভ্রাম্যমাণ আদালত ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেছেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এম এম আরাফাত হোসেন শুক্রবার বিকেলে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ওই কারাদন্ড প্রদান করেন।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে, কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে উপজেলার ধর্মপুর গ্রামের আব্দুল খালেকের ছেলে কথিত ডাক্তার রেজাউল ইসলাম মিঠু ডিএমএফ (ফার্মাসিস্ট) হয়ে বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমডিসি) এর রেজিস্ট্রেশন ছাড়াই নামারে আগে ডাক্তার ব্যবহার করে ডাক্তারী প্যাড ছাপিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে দীর্ঘদিন ধরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে সোহান ফার্মেসীতে বসে নারী, পুরুষ ও শিশু রোগের প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করে আসছে।

বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমডিসি) এর রেজিস্ট্রেশন ছাড়াই ডাক্তার সেজে রোগি দেখার অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এম এম আরাফাত হোসেন শুক্রবার বিকেলে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে তাকে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেছেন। এ সময় কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার আহসানুল মিজান রুমিসহ থানা পুলিশ সহযোগিতা করেন।

এছাড়া কেশবপুর পৌরশহরে শুক্রবার দুপুরে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট ইরুফা সুলতানা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে নোংরা পরিবেশের কারণে বনানী টি স্টোরের মালিকে ২ হাজার টাকা এবং সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে করে দোকান খোলা রাখার অপরাধে বেডিং হাউসকে ২০০ টাকা ও সুব্রত সুজকে ২০০ টাকা জরিমানা করেন। এ সময় কেশবপুর থানা পুলিশ সহযোগিতা করেন।

Views: 14