কেশবপুরে ত্রিমোহিনী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে আব্বাস মোল্যা

আক্তার হোসেন, ডেস্ক রিপোর্ট
আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে কেশবপুরে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে আব্বাস মোল্যা উপজেলার ১নং ত্রিমোহিনী ইউনিয়নে ব্যাপকভাবে সাড়া জাগিয়েছে। অতীতে ব্যাপক জনসেবামুলক কর্মকান্ডের জন্য তিনি সাধারন মানুষের কাছে ব্যাপকভাবে জনপ্রিয়তা লাভ করেছেন। অতীতের মত ভবিষ্যতেও তিনি ইউনিয়নবাসীর ভাগ্য উন্নয়নে নিঃস্বার্থভাবে কাজ করে যাওয়ার অঙ্গিকার নিয়ে নিজেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ঘোষনা দিয়ে ইউনিয়নের বিভিন্ন হাট-বাজার, ওয়ার্ড-গ্রাম ও পাড়া-মহাল্লায় গিয়ে সাধারন মানুষের সার্বিক বিষয়ে খোঁজখবর ও অসহায় পরিবারদেরকে আর্থিকভাবে সাহায্য সহযোগীতার অব্যাহত রেখেছেন।

ত্রিমোহিনী ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী ও বিশিষ্ট সমাজসেবক আব্বাস মোল্যা এই প্রতিনিধিকে জানান, ভোটের পর কোন চেয়ারম্যানই পূর্বের প্রতিশ্রæতির কথা না ভেবে নিজেদের আখের গোছাতে ব্যস্ত থাকে। তাই এই ইউনিয়নের প্রতারিত ভোটাররা আগামী নির্বাচনে প্রতীক দেখে নয়, নীতিবান প্রার্থীকেই ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত করবেন। তিনি আরো বলেন, তার প্রচেষ্টায় (আব্বাস মোল্যা) ২০০১ সালে প্রায় ৩ লাখ টাকা ব্যয়ে রঘুরামপুর থেকে বরনডালী গ্রামসহ সরসকাটি বাজার পর্যন্ত প্রায় ৪ কিলোমিটার মেইন বিদ্যুৎ লাইন নির্মাস সম্ভব হয়েছে। এছাড়া ২০০৩ সালে তার প্রচেষ্টায় কপোতাক্ষ নদের পাশ্ববর্তি সরসকাটি বাজার গ্রামীন ফোন টাওয়ার হতে মিরের ডাঙ্গা পর্যন্ত প্রায় ৪ কিঃমিঃ বন্যা নিয়ন্ত্রন ভেড়ী বাঁধ স্বেচ্ছা শ্রমের মাধ্যমে নির্মান, স্বেচ প্রকল্পের মাধ্যমে ১২শ বিঘা বিশিষ্ট বরনডালী খোঁচমারী-নক্ষটুপি ও চাতরার বিলের দীর্ঘদিনের জলাবদ্ধতা নিষ্কাশন করে ইরি-বোরো আবাদের উপযোগী করে তোলাসহ জনসাধারনের চলাচলের অনুপোযোগী সরসকাটি ওয়াপদার বাঁধসহ ইউনিয়নের অসংখ্য কাঁচা-পাকা রাস্তা সংষ্কার করে দেওয়ায় তিনি ইউনিয়নবাসীর কাছে অত্যান্ত আস্তাভাজন ব্যক্তি হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন। সাধারন ভোটাররা যদি ভোটের মাঠে গিয়ে তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পারেন তাহলে তার বিজয় সুনিশ্চিত বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। ১নং ত্রিমোহিনী ইউনিয়নে ৯টি ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা প্রায় ১৩ হাজার বলে জানা গেছে।

Views: 8