ডুমুরিয়ায় পরীক্ষাকেন্দ্রের এক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সেচ্ছাচারিতার অভিযোগ ও এক শিক্ষকের ১৫ দিনের জেল

সুমন ব্রহ্ম,ষ্টাফ রিপোর্টার (খুলনা) থেকে \

ডুমুরিয়া উপজেলার দিব্যপল্লী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এস এস সি পরীক্ষা কেন্দ্রের দ্বায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সেচ্ছাচারিতার অভিযোগ করেছেন এক পরীক্ষার্থীর পিতা।

অভিযোগকারী সুভাষ চন্দ্র সরদার তার অবিযোগে লিখেছেন গতকাল মঙ্গলবার এস এস সির গণিত পরীক্ষা ছিল এবং উক্ত পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে কন্যা ঋতু সরদার (রোল নং- ১১৪৬৫২) বোর্ডের অনুমোদিত ক্যালকুলেটর (এফ এক্স -৫৭০এম এস) ব্যাবহার করছিল , তারপরও কেন্দ্রের দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপজেলা আই সিটি প্রোগ্রামার মোঃ শাহাদাত হোসেন পরীক্ষা শুরু হওয়ার সাথে সাথে ক্ষমতার অপব্যাবহার করে ক্যালকুলেটারটি সিজ করে নেয় যে কারনে ঐ মেধাবী ছাত্রীর পরীক্ষা খারাপ হয়েছে এমনকি সে মানষিক ভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে, পরীক্ষা শেষে বিষয়টি নিয়ে দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সক্সেগ কথা বলতে গেলে তিনি দূর্ব্যাবহার করেন বলেও অভিযোগ পত্রে উল্লেখ করেছেন। কেন্দ্র সচীব মোঃ নুরুর ইসলামের সাথে কথা বললে তিনি বলেন পরীক্ষা শেষে ঐ ছাত্রীর পিতা যখন দ্বায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলছিল তখন বিষয়টি জেনেছি। পরবর্তীতে বিষয়টি নিয়ে অভিযুক্ত আই সিটি প্রোগ্রামার ও কেন্দ্র দ্বায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ শাহাদাত হোসেনের সাথে কথা বললে তিনি ক্যালকুলেটর সিজ করার বিষয়টির সত্যতা স্বীকার পূর্বক দূর্ব্যাবহার করার বিষয়টি কৌশলে এড়িয়ে যান। এব্যাপারে কথা বললে উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার সজ্ঞীব দাশ বলেন, অভিযোগ পেলে তদন্ত পূর্বক ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে। অপরদিকে ডুমুরিয়া এন জি সি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কারিগরী পরীক্ষা কেন্দ্রের কর্তব্যরত এক শিক্ষককে ১৫ দিনের জেল দিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত , আদালত সূত্রে জনাযায় ,মোঃ হাফিজুর রহমান নামের এক শিক্ষক পরীক্ষার্থদের অসাধুপায় অবলম্বন করতে সাহায়তা প্রদান করছিল যেটা পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শনে যেয়ে হাতেনাতে ধরে ফেলে উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার সজ্ঞীব দাশ এবং তাৎক্ষনিক ভাবে দন্ডবিধির (১৮৬০) এর ১৮৮ ধারায় ১৫ দিনের জেল প্রদান করেন। আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার সজ্ঞীব দাশ।

 

 

রূপসা নিউজ /আক্তার হোসেন

Views: 159